January 26, 2017
না ফেরার দেশে নোয়াখালীর সাংবাদিকতার প্রতিকৃত কাজী মো: রফিক উল্যাহ

স্টাফ রিপোর্টার: না ফেরার দেশে চলে গেলেন বৃহত্তর নোয়াখালীর সাংবাদিকতার প্রতিকৃত কাজী মো: রফিক উল্যাহ। বুধবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২ টায় তিনি হৃদরোগে আক্রান্ত হলে পরিবারের লোকজন তাকে দ্রুত মাইজদী প্রাইম হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। মৃত্যু কালে তিনি স্ত্রী, ২ মেয়ে, ১ দত্তক ছেলেসহ অসংখ্য গুনগ্রাহি রেখে গেছেন। তার মৃত্যুতে নোয়াখালীর সাংবাদিক অঙ্গনে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। তার মৃত্যুতে নোয়াখালীর সাংবাদিক সংগঠনসহ বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠন গভীর শোক ও সমবেদনা জানিয়েছে। কাজী মো: রফিক উল্যাহর মৃত্যুতে গভীর ভাবে শোকাহত চৌমুহনী প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দ ও দৈনিক জাতীয় নিশান পরিবার।
ব্যক্তি জীবনে কাজী মো: রফিক উল্যাহ একজন সৎ, বিনয়ী ও স্বদালাপি ছিলেন। তার বর্নাঢ্য জীবনে তিনি একাধারে চৌমুহনী পৌরসভার প্রথম সচিব, চৌমুহনী প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা, বৃহত্তর নোয়াখালীর গণমানুষের কন্ঠস্বর ও বৃহত্তর নোয়াখালীর প্রথম দৈনিক জাতীয় নিশানের প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক ও প্রকাশক, লক্ষীপুর থেকে প্রথম প্রকাশিত লক্ষীপুর কন্ঠেরও তিনি প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক ও প্রকাশক, নিজ এলাকা একলাশপুরের গাবুয়ায় বঙ্গবন্ধু আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের তিনি প্রতিষ্ঠাতা। এছাড়া তিনি দীর্ঘদিন বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন নোয়াখালী জেলা শাখার সভাপতির দায়ীত্ব পালন করেন।
বিশেষ দৈনিক জাতীয় নিশানে ব্যাপক লেখালেখির মাধ্যমে তিনি এ অঞ্চলের মানুষের ভাগ্য উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা রাখেন। ভিন্নধর্মী লেখনির জন্য তিনি ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করেন। তার
প্রথম জানাজা একলাশপুর গবুয়ায় দুপুর ১.৩০ মিনিটে এবং মাইজদী শহীদ ভূলু স্টেডিয়ামে বেলা ২০.৩০ মিনিটে ২য় জানাজা শেষে তাকে মাইজদী পুলিশ ট্রেনিং সেন্টারের পাশের নিজ বাড়িতে পারিবারিক গোরস্থানে দাপন করা হবে।

Spread the love
আরো খবর


প্রতিষ্ঠাতা: মরহুম কাজী মো: রফিক উল্যাহ, সম্পাদক: ইয়াকুব নবী ইমন, প্রকাশক: কাজী নাজমুন নাহার। সম্পাদক কর্তৃক জননী অফসেট প্রেস, ছিদ্দিক প্লাজা, করিমপুর রোড, চৌমুহনী, নোয়াখালী থেকে মূদ্রিত।

বার্তা, সম্পাদকীয় ও বানিজ্যিক কার্যালয়: ছিদ্দিক প্লাজা(৩য় তলা উত্তর পাশ), করিমপুর রোড, চৌমুহনী, নোয়াখালী। মোবাইল: সম্পাদক-০১৭১২৫৯৩২৫৪, ০১৮১২৩৩১৮০৬, ইমেইল-:: jatiyanishan@gmail.com, Emonpress@gmail.com