লক্ষ্মীপুরে খোঁজ মিলেছে দুই’শ বছরের পুরোনো জাহাজ

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি: লক্ষ্মীপুরে রামগতি উপজেলার চর রমিজ ইউনিয়নের চর আফজল গ্রামে পুকুর খনন করতে গিয়ে দুশ’ বছরের একটি পর্তুগিজ জাহাজের খোঁজ মিলেছে। পুকুরের মাটি কাটতে গিয়ে এ জাহাজের সন্ধান পায় শ্রমিকরা। সম্প্রতি নদী ভাঙা এক কৃষক পরিবার চর আফজল গ্রামে জমি কিনে বাড়ি করেন। জমির মালিক মাহফুজ বসত ঘরের পাশে পুকুর খনন করছিলেন। এক পর্যায়ে দেখা মেলে জাহাজের মাস্তুল। মুহূর্তে এ খবর আশপাশের জেলায় ছড়িয়ে পড়লে লোকজনের ভিড় জমতে শুরু করে। ঘটনাস্থলে লোকজন টিউবওয়েলের মিস্ত্রি দিয়ে পাইপ বোরিং করায়। আশেপাশের দুই-তিন শ’ ফুট এলাকা জুড়ে বোরিং করানো হয়। তাতে দেখা যায় ১২-১৪ ফুট গভীরে গেলে পাইপ আটকা পড়ে। একইভাবে বেশ কয়েকবার ভিন্ন ভিন্ন স্থানে বোরিং করে এলাকার লোকজন নিশ্চিত হয়েছেন এটি বিশাল আকৃতির ‘জাহাজ’। সরেজমিনে এসে কথা হয় বিবিকে পাইলট আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক আবু তাহেরের সঙ্গে। তিনি বলেন, প্রায় দেড়/দুশ’ বছর আগে নদী থেকে জেগে উঠে চর রমিজ ইউনিয়ন। পরবর্তিতে ফসল আবাদ ও বসতি গড়ে উঠে। তার আগে এই চরসহ রামগতি উপজেলা বিশাল অংশ ছিলো উত্তাল নদী। বঙ্গোপসাগর সংযুক্ত এই নদী ছিলো বিশাল বৃস্তিত। এই রুটে চলাচল করতো বড় বড় জাহাজ। পর্তুগিজদেরও এই পথে যাতায়াত ছিলো। সেই সময়ে ডুবে যাওয়া জাহাজ হতে পারে এটি। এলাকার প্রবীন লোকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, উত্তাল নদীতে পলি জমে চরে রুপান্তরিত হয়। এতে মাটির নিচে চাপা পড়ে যায় ডুবে যাওয়া জাহাজ। এখন মাটি কেটে পুকুর খনন করায় সেই ডুবে যাওয়া জাহাজের সন্ধান পাওয়া যায়।কলেজ পড়ুয়া ছাত্র শরিফ ও আকবর জানান, খবর পেয়ে জাহাজ দেখতে এসেছেন। তারা মনে করেন বিষয়টি প্রতœতত্ত বিভাগের নজরে আনা জরুরি। গবেষণায় জানা যাবে এটি কি এবং এর রহস্য ও ইতিহাস। স্থানীয় শিক্ষক ও সাংবাদিক সানা উল্যাহ সানু লক্ষ্মীপুরের ইতিহাস-ঐতিহ্য, ঐতিহাসিক নানা বিষয় নিয়ে একটি বই লিখছেন; জাহাজের সন্ধান বিষয়ে তিনি ধারণা করছেন এটি মোগল আমলের পর্তুগিজ কিংবা আরাকান দস্যুদের জাহাজ হতে পারে। রামগতির চর রমিজ নদী গর্ভে থেকে জেগে উঠেছে প্রায় দেড় বছর আগে। জাহাজটি তারও আগে নদীতে ডুবে থাকতে পারে। ইউএনও আজগর আলী বলেন, ঘটনাস্থলে পরিদর্শন করেছি। এ বিষয়ে প্রতœতত্ত্ব বিভাগে চিঠি পাঠানো হয়েছে।

Share Button

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *