মানবতার দেয়াল এখন হাতিয়ায়

নিশান ডেক্স: মানবতার দেয়াল এখন নোয়াখালীর হাতিয়ায়। এটি হাতিয়া উপজেলা পরিষদের সামনে জাহাজমারা বাজারের দিকে যেতেই একটি দেয়াল ঘেষেই এই উদ্যোগ। যা দেখতে উৎসুক মানুষের ভিড়। দেয়ালের গায়ে পুরনো কাপড় কেন? এমন প্রশ্ন অনেকেরই। দেয়ালের উপরে লেখা দেখে প্রশ্নের উত্তর মিলল।
লেখা রয়েছে- আত্মমানবতার সেবায় এগ্রিয়ে আসুন। এর ডান দিকে লেখা রয়েছে- আপনার অতিরিক্ত জিনিস এখানে রেখে যান। বাম দিকে লেখা রয়েছে- আপনার প্রয়োজনীয় জিনিসি নির্ভয়ে নিয়ে যান। সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফেসবুকে কিছুদিন ধরেই চলছে এমন উদ্যোগ ব্যাপক আলোচনায়। কিন্তু হাতিয়া উপজেলায় এমন উদ্যোগ এটিই প্রথম। দেয়ালে সারি সারি সাজানো রয়েছে পুরনো কাপড়। পাশে দুটো কাঠের ঝুড়িতেও পুরনো কাপড়ের দেখা মিলল। তবে অভিনব এই উদ্যোগের উদ্যোক্তা হল হাতিয়ার দ্বীপঞ্চল সংগঠন। জানা যায়, এমন উদ্যোগটি ২০১৫ সালে ইরানের উত্তর-পূর্বের শহর মাশাদে প্রথম এমন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল। সেখানে শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র পৌঁছে দিতে অজ্ঞাত কোনো ব্যক্তি এমন উদ্যোগ নিয়েছিলেন। সেই উদ্যোগে উদ্বুদ্ধ হয়ে ২০১৫ সালের নভেম্বরে মাগুরা জেলার শালিখা উপজেলার আড়পাড়া মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এমন উদ্যোগ নেওয়া হয়। এরপর নোয়াখালীর চৌমুহনী রেলওয়ে স্টেশন ও লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার চর আবাবিল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সালে এমন উদ্যোগ নিতে দেখা যায়।
এ ব্যাপারে হাতিয়ার দ্বীপাঞ্চল সংগঠনের সদস্যরা জানান, সমাজে সমাজের অসহায় অবহেলিত মানুষের পাশে দাঁড়ানো আমাদের দায়িত্ব। তাই এই দায়িত্ববোধ থেকে আমাদের সংগঠন দ্বীপাঞ্চল হাতিয়ার সুবিধাবঞ্চিত অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানোর লক্ষ্যে হাতিয়া উপজেলার বিভিন্ন জায়গায় ‘মানবতার দেয়াল স্থাপনের উদ্যোগ নিয়েছি আমরা। প্রাথমিক অবস্থায় আমরা উপজেলা পরিষদের সামনে ও জাহাজমারা বাজারে আমরা মানবতার দেয়াল স্থাপন করেছি। অচিরেই আরো কয়েকটি স্থানে এসব দেয়াল স্থাপন করা হবে। আমরা আশা করি এসব দেয়ালে রাখা কাপড় অসহায়, অবহেলিত মানুষের কষ্ট লাঘব করতে সাহায্য করবে। আমাদের দৈনন্দিন জীবনের ব্যবহারের অতিরিক্ত এবং অপ্র্রয়োজনীয় ব্যবহারযোগ্য অনেক পোশাক আমাদের ঘরে অকারণে এবং অব্যবহৃত অবস্থায় পড়ে থাকে। আমি সবাইকে অনুরোধ করবো সেই পোশাকগুলো আমাদের মানবতার দেয়ালে জমা দিয়ে সমাজের সুবিধাবঞ্চিত মানুষগুলোর সহায়তায় এগিয়ে আসার জন্য।#

Share Button

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *