নোয়াখালীতে জীবন ঝুকি নিয়ে চলছে শিক্ষার্থীরা

স্টাফ রিপোর্টার: নোয়াখালীর প্রধান বাণিজ্যিক শহর চৌমুহনী। এ সড়ক দিয়ে চৌমুহনী সরকারি এস এ কলেজ, গনিপুর পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, মদন মোহন উচ্চ বিদ্যালয় ছাড়াও বেশ কয়েকটি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও কিন্ডারগার্টেন স্কুলের হাজার হাজার শিক্ষার্থী যাতায়াত করে থাকে।
শহরের প্রধান সড়কের সংযোগ থেকে বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় পর্যন্ত অর্ধ কিলোমিটার সারাদিন মালামাল লোড-আনলোড করার জন্য ট্রাক, পিকআপের জট লেগে থাকে। তার ওপর রয়েছে অটোরিকশা, রিকশা ও অন্যান্য যানবাহন। এতে শিক্ষার্থীরা ছাড়াও পথচারী নারী পুরুষ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করে। এ সড়কের জট এতই বেশি যে, শিক্ষার্থী, পথচারী এমনকি পুলিশও দুর্ঘটনায় মারা গিয়েছে। অথচ এ ব্যাপারটি নিয়ে কারো কোন মাথা ব্যথা নেই। এ ব্যাপারে চৌমুহনী পৌর সভার সচিব কাইয়ুম উদ্দিন জানান, স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের নিরাপদে চলাচলের জন্য অনেকবার প্রশাসন, গাড়ির মালিক ও শ্রমিক পক্ষকে নিয়ে বসা হয়েছে। কিন্তু বাস্তবায়নে তেমন ফল পাওয়া যায় না। ব্যবসায়ীরা চায় তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সামনেই মালামাল খালাস ও বোঝাই করতে। চৌমুহনী সাধারণ ব্যবসায়ী সমিতির সম্পাদক আবুল খায়ের জানান, চৌমুহনী শহর নোয়াখালী জেলার প্রধান বাণিজ্যিক কেন্দ্র হলেও মালামাল লোড-আনলোডের কোন স্থান নেই। বাধ্য হয়ে কলেজ রোড ব্যবহার করতে হচ্ছে। যতটুকু সম্ভব গাড়ি সারিবদ্ধভাবে রেখে লোড-আনলোড করা হচ্ছে। সাধারণ ছাত্র-ছাত্রীদের অভিযোগ, গাড়ির শ্রমিক ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের শ্রমিকদেরকে কিছু বলা যায় না, বলতে গেলে শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা করে এবং ছাত্রীদেরকে নানান অঙ্গ ভঙ্গি ও অকথ্য ভাষা ব্যবহার করে থাকে। এর থেকে পরিত্রাণ চায় তারা।

Share Button

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *