নোয়াখালী-২ আসনে আলোচনায় মানিক

ইয়াকুব নবী ইমন: নোয়াখালী-২(সেনবাগ-সোনাইমুড়ী আংশিক) আসনে আওয়ামীলীগের সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে আলোচনায় রয়েছেন জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ও তমা গ্রুপের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান ভূঁইয়া মানিক। বিভিন্ন দলীয় কর্মকান্ডের মাধ্যমে তিনি দলের তৃণমূলের নেতাকর্মীদের আস্থার প্রতিকে পরিণত হয়েছেন।
ইতিমধ্যে মানিক আওয়ামীলীগের ধানমন্ডির কার্যালয় থেকে দলের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের কাছে থেকে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ কনেছেন। মঙ্গলবার দুপুরে তা জমাও দিয়েছেন।
আতাউর রহমান মানিক মূলত সেনবাগ আওয়ামী লীগের দূর্দিনের কান্ডারী এবং দুঃসময়ের পরিক্ষিত নেতা। সেনবাগের বর্তমান এমপি মোরদেশ আলমের সাথে যখন স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা-কর্মীদের কোন্দল তুঙ্গে। তখননি তিনি জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতির পদ নিয়ে ত্রাণ কর্তা হিসেবে আবির্ভূত হয়ে দলের হাল ধরেন । সেনবাগ এসেই তিনি দলকে সু-সংগঠিত করার চেষ্টা করেন। সফলও হয়েছেন অনেক। আগে যেখানে সেনবাগে দলীয় তেমন কোন পোগ্রম হতোনা সেখানে আতাউর রহমান মানিক নিজ খরচে পোগ্রাম করে দলের নেতাকর্মীদের চাঙ্গা রেখেছেন। নেতাকর্মীদের বিপদে-আপদে যখনি পেরেছেন সাহায্যের হাত বাড়িয়েছেন। পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করেছেন। যার জন্য দলের নেতাকর্মীরা আজ তার জন্য একাট্টা।
সেনবাগ উপজেলার একাধিক তৃণমূল নেতাকর্মীর সাথে আলাপ করলে তারা জানান, বর্তমান এমপি মোরশেদ আলম সাহেব মূলত ব্যবসায়ী। তিনি রাজনীতি বুঝেননা। এলাকায় সময় দেন কম। দলের নেতাকর্মীদের প্রয়োজনে উনাকে ঠিক মতো পাননা। দলের পোগ্রাম, নিয়মিত সভা-সমাবেশেও মোরশেদ আলম সাহেব আসেননা। কারণ তিনি বেশির ভাগ সময় ঢাকায় ব্যবসা বাণিজ্য নিয়ে ব্যস্ত থাকেন। ফলে উনার উপর দলের নেতাকর্মীরা ক্ষুব্দ। তাই যিনি দলের জন্য সময় দেন, দলের নেতাকর্মীদের পাশে সব সময় থাকেন তাকেই এবার প্রার্থী হিসেবে চায় তৃণমূলের নেতাকর্মীরা।

এদিকে আতাউর রহমান ভূঁইয়া মানিক ছাড়াও এই আসন থেকে প্রতিদ্ধন্ধিতা করার জন্য মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন বর্তমান সংসদ সদস্য মোরশেদ আলম, বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতির সাধারন সম্পাদক ড. জামাল উদ্দিন আহমেদ,সেনবাগ উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব জাফর আহম্মদ চৌধুরী, সানজি গ্রুপের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক লায়ন জাহাঙ্গীর আলম মানিক, কেন্দ্রীয় কৃষকলীগের সদস্য মোশারফ হোসেন আলমগীর, মহিলা আওয়ামীলীগ নেত্রী জান্নাতুল ফেরদাউস ফেন্সী।
অপরদিকে এই আসনে বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে রয়েছেন সাবেক সংসদ সদস্য ও খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা জয়নুল আবেদীন ফারুক এবং কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য কাজী মফিজুর রহমন। এখানে মূলত আওয়ামীলীগ থেকে যিনিই প্রার্থী হিসেবে আসবেন তাকে প্রতিদ্ধান্ধিতা করতে হবে জয়নুল আবদীন ফারুকের সাথে। বিগত দিনের উন্নয়ন কর্মকান্ডের কারণে এখানে বিএনপির প্রার্থী জয়নুল আবদীন ফারুকেরও ব্যাপক গ্রহন যোগ্যতা রয়েছে।
তবে এখানে জাতীয় পার্টির প্রার্থী হিসেবে মাঠে রয়েছেন সেনবাগ উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি হাসান মঞ্জুর। তিনি ইতিমধ্যে মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেছেন।

Share Button

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *