হাইওয়ে পুলিশে ধাওয়ায় বাসের নিচে সিএনজি অটোরিক্সা, নিহত ২ জন, আহত-৪,

সেনবাগ প্রতিনিধি: নোয়াখালীর সেনবাগে হাইওয়ে পুলিশের ধাওয়া খেয়ে পালানো সময় দ্রুত গতির যাত্রীবাহী বাসের চাপায় সিএনজি চালিত অটোরিক্সার যাত্রী ২ যাত্রী নিহত ও ৪ জন আহত হয়েছে। সোমবার দুপুরে উপজেলার ফেনী-নোয়াখালী আঞ্চলিক সড়কের তিনপুকুরিয়া নামকস্থানে এ দূর্ঘটনা ঘটে। পুলিশ ঘাতক বাসটি আটক করেছে। এ এ সময় বিক্ষুব্দ জনতা হাইওয়ে পুলিশের উপর হামলা করে। এ ঘটনায় পুলিশ এক হামলাকারীকে আটক করে।
নিহত আলেয়া বেগম(৩৩) সেনবাগ উপজেলার মোহাম্মাদপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ রাজারামপুর গ্রামের লেদু মিয়ার নতুন বাড়ী আলা উদ্দিনের স্ত্রী ও চালক ইসলাইল একই উপজেলার নবীপুর ইাউনিয়নের চন্দেরহাট এলাকার শ্রীপদ্দী গ্রামের আবদুল মতিনের ছেলে। আহতরা হলেন-নিহত আলেয়ার স্বামী আলাউদ্দিন (৪০) ও তাদের শিশু সন্তান মিম (৪)সহ অজ্ঞাতনামা আরো ২ জন। স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করান।
প্রত্যক্ষদশীরা জানায়, দুপুরে সেনবাগ থেকে পল্লী বিদুৎতের বিল পরিশোধ করে নাম্বার বিহীন একটি সিএনজি যোগে বাড়িতে যাচ্ছিলেন আলাউদ্দিন দম্পতিসহ অন্য দ্ইু যাত্রী। সিএনজিটি ঘটনাস্থল দিয়ে যাওয়ার সময় হাইওয়য়ে পুলিশ একটি চেকপোষ্টে সিএনজি গাড়ীটি থামানোর জন্য সিগনাল দেয়। কিন্তু সিএনজি চালক ইসমাইল পুলিশ দেখে দ্রুত পালিয়ে যাবার চেষ্টা করলে হাইওয়ে পুলিশও তাকে ধাওয়া করে। এ সময় পিছন থেকে দ্রুত গতিতে আসা শাহী পরিবহনের যাত্রীবাহি বাসের নিচে চাপা পড়ে সিএনজিটি। ফলে হতাহতের এ ঘটনা ঘটে। এ সময় বিক্ষুব্দ এলাকাবাসী হাইওয়ে পুলিশের ওপর হামলা চালালে হাইওয়ে পুলিশ এসআই অচিন্দ্র কুমার দে সদস্য আহত হয়। এ ঘটনায় পুরিশ হামলাকারী শওকত আলীতে আটক করে।
সেনবাগ থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) মিজানুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, দূর্ঘটনায় দুমড়ে মুচড়ে যাওয়া সিএনজি অটোরিক্সাটি উদ্ধার ও ঘাতক বাসটিকে আটক করা হলেও বাসের ড্রাইভার সুপার ভাইজার পালিয়ে যায়।
সোমবার সন্ধায় চন্দ্রগঞ্জ হাইওয়ে পুলিশের ইনচার্জ(ওসি) শাহ জাহান খান জানান, আমাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ ঠিক নয়, কাগজপত্র না থাকায় পুলিশ দেখে হয়তো পালাতে গিয়ে এ ঘটনা ঘটেছে। ঘটনার সময় হাইওয়ে পুলিশ ছিলোনা, ঘটনার পর হাইওয়ে পুলিশ ও থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়।

Share Button

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *