নোয়াখালী সদরে যুবলীগ নেতা হত্যায় আ’লীগ-বিএনপির পাল্টাপাল্টি অভিযোগ, মামলা হয়নি, গ্রেফতার নেই

স্টাফ রিপোর্টার: নোয়াখালী সদর উপজেলার এওজবালিয়া ইউনিয়নের নুরু পাটোয়ারি হাটে সংঘর্ষে ওয়ার্ড যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মো: হানিফ নিহতের ঘটনায় আওয়ামীলীগ ও বিএনপির পাল্টাপাল্টি অভিযোগ করেছে। তবে এই হত্যাকান্ডের ঘটনায় এখনো পর্যন্ত থানায় মামলা হয়নি। কোন গ্রেফতারও নেই। এ ঘটনার পর এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। ঘটনাস্থল ও আশপাশে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।
মঙ্গলবার বিকালে নুরু পাটোয়ারি হাটে বিএনপির কর্মী সভা চলা কালে আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা নৌকার প্রচারনায় ওই এলাকায় গেলে সংঘর্ষের সুত্রপাত হয়। এ সময় গুলিবিদ্ধ হয়ে যুবলীগ নেতা হানিফ নিহত হয়। নিহত হানিফ এওজবালিয়া ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ডের মফিজ উল্যাহর ছেলে।
এদিকে এ ঘটনায় মঙ্গলবার সন্ধ্যায় নোয়াখালী জেলা আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে সাংবাদিক সম্মেলনে নোয়াখালী-৪ আসনের সংসদ সদস্য একরামুল করিম চৌধুরী অভিযোগ করে বলেন, পাকিস্তানী কায়দায় নারকীয়ভাবে আমার ওয়ার্ড যুবলীগ কর্মী হানিফকে হত্যা করা হয়। প্রথমে তাকে ইট দিয়ে পিটিয়ে এবং কুপিয়ে আহত করে বিএনপির সন্ত্রাসীরা পরে তাকে গুলি করে হত্যা করে।
অপরদিকে আওয়ামীলীগের অভিযোগ অস্বীকার করে সংবাদ সম্মেলন করেছে বিএনপি। মঙ্গলবার রাতে বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান মো. শাহজাহান জেলা শহর মাইজদীস্থ তাঁর বাস ভবনে এ সংবাদ সম্মেলন করেন। তিনি এ সময় বলেন, আওয়ামী লীগ সংবাদ সম্মেলন করে যুবলীগ নেতা হানিফ হত্যার যে দায় বিএনপির উপর চাপানোর চেষ্টা করছে, এ দায় বিএনপির নয়। এ দায় নিতে হবে প্রশাসন ও ক্ষমতাসীন দলকে।
তিনি এ অনাকাঙ্খিত মৃত্যুতে শোক প্রকাশসহ এমন ঘটনা যাতে আর না ঘটে সে জন্য প্রশাসন ও ক্ষমতাসীনদের দায়িত্বশীল ভূমিকা রাখার আহ্বান জানান।
বুধবার দুপুরে নোয়াখালী পুলিশ সুপার ইলিয়াছ শরীফের সাথে আলাপ করলে তিনি বলেন, ময়নাতদন্ত শেষে আজ সকালে নিহতের মৃতদেহ পরিবারের সদস্যদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় এখনো থানায় মামলা হয়নি, তবে প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। অভিযুক্তদের গ্রেফতার অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলেও জানান তিনি। #

Share Button

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *