উত্তপ্ত নোয়াখালীর নির্বাচনী মাঠ, সহিংসতা নিহত ১, আহত ৫০

জাতীয় নিশান রিপোর্ট: প্রতিক পাওয়ার পর প্রচার প্রচারনার শুরুতেই উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে নোয়াখালীর রাজনৈতিক মাঠ। গত ২৪ ঘন্টায় জেলার বিভিন্ন উপজেলায় আওয়ামীলীগ-বিএনপির সমর্থকদের মধ্যে পৃথক পৃথক নির্বাচনী সহিংসতা এ পর্যন্ত নিহত ১, আহত ৫০ জন হয়েছে। নোয়াখালীর সদর, কোম্পানীগঞ্জ, কবিরহাট ও হাতিয়া উপজেলায় এইসব সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।
মাইজদী থেকে বিশেষ প্রতিনিধি জানান, মঙ্গলবার বিকেলে নোয়াখালী সদর উপজেলার এওজবালিয়া ইউনিয়নের নুরু পাটোয়ারি হাটে আওয়ামীলীগ-বিএনপির সংঘর্ষে ওয়ার্ড যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মো: হানিফ নিহতের ঘটনা ঘটেছে। নিহতের ঘটনায় আওয়ামীলীগ ও বিএনপির পাল্টাপাল্টি অভিযোগ করেছে। তবে এই হত্যাকান্ডের ঘটনায় এখনো পর্যন্ত থানায় মামলা হয়নি। কোন গ্রেফতারও নেই। এ ঘটনার পর এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। ঘটনাস্থল ও আশপাশে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বিকালে নুরু পাটোয়ারি হাটে বিএনপির কর্মী সভা চলা কালে আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা নৌকার প্রচারনায় ওই এলাকায় গেলে সংঘর্ষের সুত্রপাত হয়। এ সময় গুলিবিদ্ধ হয়ে যুবলীগ নেতা হানিফ নিহত হয়। নিহত হানিফ এওজবালিয়া ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ডের মফিজ উল্যাহর ছেলে।
এদিকে এ ঘটনায় মঙ্গলবার সন্ধ্যায় নোয়াখালী জেলা আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে সাংবাদিক সম্মেলনে নোয়াখালী-৪ আসনের সংসদ সদস্য একরামুল করিম চৌধুরী অভিযোগ করে বলেন, পাকিস্তানী কায়দায় নারকীয়ভাবে আমার ওয়ার্ড যুবলীগ কর্মী হানিফকে হত্যা করা হয়। প্রথমে তাকে ইট দিয়ে পিটিয়ে এবং কুপিয়ে আহত করে বিএনপির সন্ত্রাসীরা পরে তাকে গুলি করে হত্যা করে।
অপরদিকে আওয়ামীলীগের অভিযোগ অস্বীকার করে সংবাদ সম্মেলন করেছে বিএনপি। মঙ্গলবার রাতে বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান মো. শাহজাহান জেলা শহর মাইজদীস্থ তাঁর বাস ভবনে এ সংবাদ সম্মেলন করেন। তিনি এ সময় বলেন, আওয়ামী লীগ সংবাদ সম্মেলন করে যুবলীগ নেতা হানিফ হত্যার যে দায় বিএনপির উপর চাপানোর চেষ্টা করছে, এ দায় বিএনপির নয়। এ দায় নিতে হবে প্রশাসন ও ক্ষমতাসীন দলকে।
তিনি এ অনাকাঙ্খিত মৃত্যুতে শোক প্রকাশসহ এমন ঘটনা যাতে আর না ঘটে সে জন্য প্রশাসন ও ক্ষমতাসীনদের দায়িত্বশীল ভূমিকা রাখার আহ্বান জানান।
আমাদের কবিরহাট প্রতিনিধি জানান, নির্বাচনী প্রচারণার অংশ হিসেবে মঙ্গলবার সকালে কবিরহাট বাজার জিরো পয়েন্টে নোয়াখালী-৫ আসনের বিএনপি প্রার্থী ব্যারিষ্টার মওদুদ আহমদ পথসভা করার কথা ছিল। সকাল থেকে ওইস্থানে উপজেলার বিভিন্ন স্থান থেকে বিএনপির নেতাকর্মীরা মিছিল নিয়ে একত্রিত হতে থাকে। বেলা ১২টার দিকে ঘোষবাগ থেকে বিএনপির মিছিল আসার সময় কবিরহাট দক্ষিণ বাজারে আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীদের সাথে ধাওয়া পাল্ট ধাওয়া ও সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। পরবর্তীতে এই সংঘর্ষ পুরো বাজারে ছড়িয়ে পড়ে। এ সময় কয়েকটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ভাঙচুর করে সংঘর্ষকারীরা।
কবিরহাট পৌরসভা বিএনপির সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান মঞ্জু অভিযোগ করে বলেন, আ’লীগের নেতাকর্মীরা বিএনপির শান্তিপূর্ণ মিছিলে অর্তকিত হামালা চালায়। পরবর্তীতে হামলাকারীরা তার বাড়ী, বিএনপির নির্বাচনী অফিস ও বিভিন্ন দোকানে ভাংচুর করে। আ’লীগের হামলায় কবিরহাট উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কামরুল হুদা চৌধুরী লিটন, জাসাসের সভাপতি আবদুস সাত্তার, নরোত্তমপুর ইউনিয়ন বিএনপির সাবেক সাধারন সম্পাদক আবদুর রশিদ, কবিরহাট পৌর যুবদলের সহ-সভাপতি আলাউদ্দিন ও প্রবাসী বিষয়ক সম্পাদক গোলাম মোমিত ফয়সল’সহ অন্তত ২০জন নেতাকর্মী আহত হয়েছে। তিনি আরো অভিযোগ করেন, সকালে পথসভায় আসার পথে উপজেলার ভূঁইয়ারহাট, শাহজীরহাট, কাচারিরহাট, কালামুন্সী বাজার, ব্যাপারীহাট’সহ বিভিন্ন স্থানে বিএনপির মিছিলেও হামলা করা হয়। বিএনপির অভিযোগ অস্বীকার করে কবিরহাট উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম পাল্টা অভিযোগ করে বলেন, সকালে কবিরহাট দক্ষিণ বাজারের নবারুণ একাডেমির সামনে বিএনপির মিছিল থেকে উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল জলিল, ৯নং ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি ইসমাইল’সহ আমাদের দলের নেতাকর্মীদের উপর অর্তকিত হামলা চালানো হয়। বিএনপির হামলায় জলিল, ইসমাইল’সহ আওয়ামীলীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের অন্তত ১০নেতাকর্মী আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে ইসমাইলকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
হাতিয়া প্রতিনিধি জানান, হাতিয়ার ওছখালীতে গত মঙ্গলবার সন্ধায় বিএনপির সমর্থকদের হামলায় আওয়ামীলীগের অন্তত ৬ জন আহত হয়েছে। এর মধ্যে ৩ জনকে হাতিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।
এছাড়াও কোম্পানীগঞ্জে নির্বাচনী সহিংসতার খবর পাওয়া গেছে।
বুধবার দুপুরে নোয়াখালী অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সৈকত শাহিনের সাথে আলাপ করলে তিনি বলেন, এওজবালিয়ায় গুলিতে নিহতের মৃতদেহ পরিবারের সদস্যদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় এখনো থানায় মামলা হয়নি, তবে প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। অভিযুক্তদের গ্রেফতার অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলেও জানান তিনি।

Share Button

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *