সুবর্নচরে ভোটের রাতে গণধর্ষনের শিকার গৃহবধুর পাশে সরকার

প্রতিনিধি: নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে নির্বাচনী কেন্দ্রে দায়ীত্ব পালন কালে সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহত আনসার সদস্য নুর নবী হেঞ্জুর পর এবার সুবর্নচরে ধানের শীষে ভোট দেওয়ায় ভোটের দিন দিবাগত রাতে গণধর্ষণের শিকার গৃহবধুর পাশে দাঁড়িয়েছে সরকার। প্রশাসনের পক্ষ থেকে ওই গৃহবধুকে সব রকমের সহায়তার আশ^াস দেয়া হয়েছে। এ ঘটনায় সর্বত্র ক্ষোভ বিরাজ করছে। গ্রেফতার করা হয়েছে মূলহোতাসহ ৭ জনকে। দোষিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানিয়েছে ভূক্তভোগী পরিবার ও এলাকাবাসী।
জানা গেছে, উপজেলার চরজুবলীতে সিরাজ উদ্দীন এর স্ত্রী গত ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনে ভোট দিতে যান স্থানীয় ভোট কেন্দ্রে। এ সময় কেন্দ্রে কয়েকজন দূবর্ৃৃত্ত তার হাত থেকে ব্যালট পেপার ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা করে। তিনি ব্যালট পেপার না দিয়ে তাদের সামনেই ধানের শীষে সিল মারেন। এতে ক্ষিপ্ত হন স্থানীয় সাবেক ইউপি মেম্বার রুহুল আমিন। এর পর গভীর রাতে রুহুল আমিন ও সহেলের নেতৃত্বে ওই গৃহবধুর বাড়িতে পুলিশ পরিচয়ে হানা দেয় দূর্বৃত্তরা। তারা ১০-১২ জন জোরপূর্বক ঘরে ঢুকে স্বামী ও সন্তানদেরকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে গৃহবধুকে বাড়ির উঠানে বেঁধে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। এ সময় তারা ওই গৃহবধুর উপর নির্মম নির্যাতন চালায়। সকালে স্থানীয়দের সহায়তায় সিরাজ তার স্ত্রীকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে। এ ঘটনা জানা জানি হলে সর্বত্র তোলপাড় সৃষ্টি হয়। অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানিয়ে মানববন্ধনসহ বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করছে স্থানীয়রা। পুলিশ ইতিমধ্যে মামলার প্রধান অভিযুক্ত ঘটনার মূলহোতা সাবেক ইউপি মেম্বার রুহুল আমিনসহ ৭ জনকে গ্রেফতার করেছে। এই ঘৃন্য অপরাধ কর্মের ঘটনায় বাকরুদ্ধ ওই পরিবার।
নির্যাতনের শিকার গৃহবধুর স্বাসী সিরাজ উদ্দিন জানান, ধানের শীষে ভোট দেওয়ার কারণেই আমাদের উপর এমন নির্যাতন করা হয়েছে। আমাদের সাথে আর কারো কেন বিরোধ নেই।
এদিকে মিডিয়ার কল্যাণে ব্যাপক আলোচিত এই ঘটনা তদন্তে ঘটনাস্থল ও হাসপাতাল পরিদর্শনে এসে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের পরিচারক (অভিযোগ ও তদন্ত) আল-মাহমুদ ফয়জুল কবীর জানান, আমরা নির্যাতিত ওই গৃহবধুর খোঁজ খবর নিয়েছি। তাকে সব রকমের আইনি সহায়তা করা হবে। দ্রুত তদন্ত প্রতিবেদন কমিশনের দাখিল করবেন বলেও জানান জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের এই কর্মকর্তা।
অপরদিকে নির্যাতিত গৃহবধুকে দেখতে এসে পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি মো. আবুল ফয়েজ সাংবাদিকদের জানান, ন্যায় বিচার নিশ্চিত করতে অপরাধী যেই হোক তাকে আইনের আওতায় আনা হবে। আমি আশ^স্ত করছি খুব দ্রুত সকল আমাসীকে গ্রেফতার করা হবে। বিষয়টি নিয়ে সরকার কঠোর অবস্থানে রয়েছে। সরকার সব সময় এই গৃহবধুর পাশে থাকবে বলেও জানান ডিআইজ।
সুবর্নচরের এই গৃহবধুকে গণধর্ষণকারী নরপশুদের সর্বোচ্ছ শাািস্ত নিশ্চিত ও আন কোন গৃহবধু যেন এমন নির্মম নির্যাতনের শিকার না হয় এমনটাই প্রত্যাশা এলাকাবাসীর।

Share Button

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *